জমি দখল ও দুর্নীতির অভিযোগ পুস্পধারার বিরুদ্ধে দুদকে

প্রকাশিত: ২:২২ পূর্বাহ্ণ, জুন ২৭, ২০২৪

খবরের কাগজ,বিশেষ প্রতিনিধি: নিরীহ মানুষের আবাদি জমি দখল,দুর্নীতি ও অনিয়ম তদন্তে ভূঁই ফোঁড় কোম্পানি পুষ্পধারা প্রপার্টিজের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) অভিযোগ জমা দিয়েছে এক ভুক্তভোগী।

অভিযোগে বলা হয়, রাজধানীর অদূরে ঢাকা-মাওয়া রোডের পাশে মুন্সীগঞ্জের ষোল ঘর এলাকায় সাধারণ মানুষের কৃষি জমিতে ভাড়ায় সাইনবোর্ড টানিয়ে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করছে। এসব সাইন বোর্ড দেখিয়ে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে পকেট কাটছে।

অভিযোগে বলা হয়েছে, রাজধানীর সিদ্ধেশ্বরীতে (সিআইডি )অফিসের বিপরীতে প্যারামাউন্ট টাওয়ারে বিশাল ফ্লোর ভাড়া নিয়ে সাইনবোর্ড টানিয়ে সাধারণ মানুষকে সেমিনারের নামে ডেকে এনে সর্বস্ব লুটে নিচ্ছে। সাধারণ মানুষের কষ্টের টাকা পকেট থেকে বের করে জমি,বাড়ি বা ফ্লাট না দিয়ে প্রতারণা করছে। বছরের পর বছর সরকারি ট্যাক্স ফাঁকি দিয়ে কোম্পানির লোকেরা আয়েশি জীবন যাপন করছে।

অথচ এই কোম্পানিটির নেই কোনো পরিবেশ ছাড়পত্র, নেই কোনো জেলা প্রশাসনের অনুমতি এবং জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের কোনো সার্টিফিকেট। অন্যের জমিতে সাইন বোর্ড টানানোয় একদিকে যেমন সর্বস্ব হারাচ্ছে ক্রেতারা অন্যদিকে বিপাকে পড়েছেন জমির মালিকরা। এ ব্যপারে জমির মালিকরা সাইন বোর্ড সরিয়ে দিতে চাইলেও লেলিয়ে দেওয়া মাস্তানদের কারণে নানাভাবে নাজেহাল হচ্ছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।

দুদকে জমা পড়া অভিযোগে বলা হয়েছে, কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়া কোম্পানিটি এখনো নিজের নামে জমি কিনতে পারেনি। আর ওই এলাকায় কৃষি জমি ভরাট করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ বলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বারবার বলা হচ্ছে। ফলে সেখানে আদৌ আবাসন কোম্পানি তাদের ব্যবসা করতে পারবে কিনা তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। এসব বিষয়ে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় রিপোর্ট প্রকাশিত হলে সাংবাদিকদের নানাভাবে ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদর্শন করা হয়।

নাম সর্বস্ব ভূইফোঁড় কোম্পানির এসব অপকর্ম ও প্রতারণা রুখে দিতে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্শন করা হয় জমা পড়া অভিযোগে। এছাড়া হাতিয়ে নেওয়া অর্থ বিদেশে পাচার হচ্ছে কিনা তাও খতিয়ে দেখার জন্য দুদককে অনুরোধ করা হয়েছে অভিযোগে।

এই বিষয়ে পুষ্পধারার ব্যবস্থাপনা পরিচালকের কাছে জানকে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের মিডিয়ার দায়িত্বে যিনি আছেন সে আপনার সাথে কথা বলবেন।